ষ্টাফ রিপোর্টার :

জনপ্রতিনিধি কিংবা একজন সমাজ সেবকের নিকট থেকে একজন শিক্ষিত বিবেকবান মানুষের কাছ থেকে আগামী প্রজন্ম ভাল কিছু শিখবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বর্তমান সমাজে ক্ষমতার দাপটে কিছু গজিয়ে উঠা নেতারা অহংকারের দাম্ভিকতায় মুখে যা আসে তাই বলছে বলে অভিমত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

এই কর্মকান্ড থেকে বড় বড় নেতারাও তার বাহিরে নয় বলে নোয়াখালীর মেয়র এবং ভাঙ্গার এমপি’র ঘটনা সবাই জানে। অন্যদিকে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া থানার ৫ নং ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাজেদুল ইসলাম সঞ্জু মুজিবর্ষের শত বছর পূর্তি উপলক্ষে গানকে কেন্দ্র করে প্রকাশ্যে মঞ্চে উঠে তার প্রতিপক্ষকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়।

প্রকাশ্যে আরো বলে আমার ক্ষমতা সম্পর্কে কারো ধারণা নেই। এমপি কুরাইশির মতো মানুষকে পানি খাওয়াইয়া ছাড়ছি। এমন কোন অস্ত্র নাই যা আমি চালাইনি। আমার এলাকার এমন কোন কুত্তার বাচ্চা নেই আমাকে জিজ্ঞাসা না করে নির্বাচন করবে। এই যদি হয় একজন জনপ্রতিনিধি সাবেক সেনা কর্মকর্তার মুখের ভাষা তাহলে আগামী প্রজন্ম কি শুধু গালিগালাজ, হুমকি ধমকি শিখবে? সরেজমিনে অনুসন্ধান করলে জানা যায়, চেয়ারম্যান সঞ্জুর আছে সন্ত্রাসী পেটুয়া বাহিনী। বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত এসব বাহিনীর বিভিন্ন সদস্যের নামে আছে একাধিক মামলা।

নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার গন্ডা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির বিরোদ্ধে,মনোনয়ন প্রত্যাশীদের প্রাণনাশের হুমকি ইউনিয়ন বাসীদের অশালীন গালিগালাজ,মিথ্যা প্রপাগাগুা প্রচার,অসদাচরণ ও তার দুূর্নীতির বিরোদ্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পবার (২৮ জানুয়ারী) উপজেলা গাড়াদিয়া মোড়ে এই কর্মসূচির আয়োজন করেন এলাকাবাসী। এতে উপস্থিত ছিলেন গন্ডা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম ভূইয়া সুমন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাকাওয়াত হোসেন,হাবিবুর রহমান খোকন, মনোনয়ন প্রত্যাশী শহিদুজ্জামান কল্যাণ,মনোনয়ন প্রত্যাশী হুমায়ন কবির দুলাল প্রমুখ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অত্র ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগ,সেচ্ছাসেবকলীগ সহ সকল স্তরের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ:গত (২৩জানুয়ারী) গন্ডা ইউনিয়নে গন্ডা দ্বি মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবন উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। পরে রাতে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কিছু লোক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। যদিও স্থানীয় লোকজন পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেছেন।

এর পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি সাজেদুল ইসলাম সঞ্জু মিয়া তিনি সাংস্কৃতি অনুষ্ঠানের মঞ্চে উঠে এ বক্তব্যে ইউনিয়নের সম্ভ্যব ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থীদের উপর বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি দায় চাপিয়ে দিয়ে অশালীন গালিগালাজ ব্যবহার করে বক্তব্য রাখেন। যার একটি ভিডিও ফেইসবুকে ভাইরাল হয়েছে।
এর প্রতিবাদে উক্ত ইউনিয়নের সাধারন জনগন ও ইউপি নির্বাচন সামনে রেখে বৃহস্পতিবার উপজেলার গাড়াদিয়া এলাকায় মানববন্ধন করেছেন।

দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশে চোখ রাখুন- চেয়ারম্যান সঞ্জুর সম্পদের হিসাব, অপকর্মের ফিরিস্ত নিয়ে আগামী পর্বে থাকবে বিস্তারিত। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের সোপানে তার কুসুম বাগানে কোন দূর্নীতিগ্রস্থ নেতার স্থান নেই। আগে সোনার বাংলা পরে অন্যসব। সাধু সাবধান।