যদিও করোনার বিরুদ্ধে এখনও শতভাগ কার্যকর কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি। টিকা নিয়েও আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। চিকিৎসকেরা বলছেন, সচেতনতা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে অনেকটা ঝুঁকিমুক্ত থাকা সম্ভব। এ বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনাও রয়েছে।

যদিও করোনার ঝুঁকি রোধে গরম পানির ভাপ বা বাষ্প একটি অস্ত্র হতে পারে বলে অনেকে মনে করেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ বিষয়ে বিভিন্ন স্বাস্থ্য-পরামর্শ দেখা যায়।

গরম পানির বাষ্প করোনার বিরুদ্ধে কীভাবে কাজ করে এ প্রসঙ্গে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘এ সময় অনেকের সিজনাল ফ্লু হয়। প্রায় সময় ঠান্ডায় নাক বন্ধ হয়ে আসে। এগুলো গরম পানির বাষ্প নেওয়ার মাধ্যমে প্রতিরোধ করা যায়। আবার করোনার যে লক্ষন; খুশখুশ কাশি- গরম পানির বাষ্প নিলে কাশি থেকে আরাম পাওয়া যায়। কিন্তু এটি সরাসরি করোনাভাইরাস ধ্বংস করে কিনা গবেষণার বিষয়।’

তাছাড়া এই থেরাপিতে করোনাভাইরাস ধ্বংস না হলেও সংক্রমণ প্রক্রিয়া ধীর হতে পারে। ফলে শরীর সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া দেখাতে বেশি সময় পাবে ও অ্যান্টিবডি তৈরি হবে।

মানুষের শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসেই সীমাবদ্ধ থাকে। এর বেশি হলে মৃত্যু ঝুঁকি দেখা দেবে। এদিকে ভাইরাস পরাজিত করতে প্রয়োজন ৭০ ডিগ্রি বা তার চেয়ে বেশি তাপমাত্রা। এই তাপমাত্রা মানবশরীর কোনো অবস্থাতেই সহ্য করতে পারবে না।

যদিও গরম পানির বাষ্পের হয়তো উপকারিতা আছে, কিন্তু করোনাভাইরাস নির্মুলে এর সরাসরি কোনো কার্যকারিতা নেই।

এমকে