নরসিংদীতে ইউনুস আলী (২৪) নামে এক মাদকাসক্ত যুবকের ছুরিকাঘাতে দুই কৃষক নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছেন আরও ১ জন।

বুধবার (০৭ এপ্রিল) সকাল নয়টার দিকে সদর উপজেলার চরাঞ্চলের নজরপুর ইউনিয়নের ছগরিয়াপাড়া গ্রামে এই হত্যার ঘটনা ঘটে।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার দত্ত চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন, ছগরিয়াপাড়া গ্রামের মৃত আবুল ফজলের ছেলে ফরহাদ মিয়া (৬০) ও মৃত. দেওয়ান আলীর ছেলে আলী আকবর (৫০)। এই ঘটনায় আহত হয়েছেন একই গ্রামের জনু মিয়ার ছেলে সেচপাম্প চালক সেন্টু মিয়া (৪৫)। এই ঘটনায় অভিযুক্ত মাদকসেবি একই গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে ইউনুস আলী (২৪) কে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, সকালে কৃষক ফরহাদ মিয়া ও আলী আকবর গ্রামের কৃষিজমিতে কাজ করছিলেন। এসময় একই এলাকার চিহ্নিত মাদকসেবি ইউনুস আলী হঠাৎ করেই ওই জমিতে গিয়ে ছুরি নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায় এবং এলোপাতারি ছুরিকাঘাত করতে থাকে। ডাক চিৎকারে পাশে থাকা সেচপাম্প চালক সেন্টু মিয়া তাদের বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তাকেও ছুরিকাঘাত করে ইউনুস। হাসপাতালে নেয়ার পথে ফরহাদ মিয়ার ও ঘটনাস্থলেই আলী আকবরের মৃত্যু হয়। আহত সেন্টু মিয়াকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। খবর পেয়ে সদর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এদিকে এলাকাবাসী অভিযুক্ত ইউনুছ আলীকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে দড়ি দিয়ে বেধে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

স্থানীয়রা আরও জানান, অভিযুক্ত ইউনুস আলী মাদকাসক্ত, পাশাপাশি নামাজও আদায় করে।সে কারো সাথে খুব একটা কথা বলে না।প্রায়ই সে মানুষের সাথে বিরূপ আচরণ করে থাকে। কিছুদিন ধরে সে বিদেশ যাওয়ার চেষ্টা করছিল। তবে মেডিকেল রিপোর্টে ব্রেনে সমস্যা দেখা দেওয়ায় সে বিদেশ যেতে পারেনি। এই নিয়ে কিছুটা হতাশায় ভুগছিল সে।

নরসিংদী সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাহিমা শারমিন জানান, ফরহাদ মিয়া নামের একজনকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তার পিঠের এক জায়গায় ও হাতের দুই জায়গায় ছুরি জাতীয় ধারালো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে।পরে আলি আকবরকেও মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় ।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার দত্ত চৌধুরী বলেন, অভিযুক্ত ইউনুসকে আটক করার পর পুলিশ পাহারায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। কী কারণে এই হত্যার ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

 

 

 

এস ই আর / ই এইচ