Connect with us

Hi, what are you looking for?

Newsbd71Newsbd71

লিড

দুই বছর ধরে বন্ধ রূপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অস্ত্রোপচার সেবা

মোঃ সাজেদুর রহমান:

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি :- নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির অস্ত্রোপচার সেবা বন্ধ রয়েছে প্রায় দুই বছর। । লোকজন সংকটের কারণে এই সেবা বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে রোগীরা ছুঁটছেন ব্যক্তি মালিকানাধীন হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে। ফলে বিপাকে পড়তে হচ্ছে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষের । দুই বছর অস্ত্রোপচার কক্ষ বন্ধ থাকায় বিকল হওয়ার পথে রয়েছে অস্ত্রোপচার সংক্রান্ত সকল যন্ত্রপাতি।

জানা গেছে, গত প্রায় দুই বছর আগে এনেসথেসিয়া বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ফকরুদ্দিন বাবু পদোন্নতি পেয়ে অন্যত্র যোগদান করেন। এরপর থেকে এই পদটি খালি অবস্থায় রয়েছে। এছাড়া দীর্ঘদিন খালি থাকার পর একজন অস্ত্রোপচার চিকিৎসক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগ দিলেও কয়েক মাস থাকার পর তিনিও চলে যান। এরপর থেকে গত এক বছর ধরে এ পদটিও শূন্য অবস্থায় রয়েছে।

গত দুই বছর আগেও এখানে প্রসূতি মায়েদের প্রসবসেবা, টিউমার, ফোঁড়াসহ বেশ কয়েকটি অস্ত্রোপচার হতো। নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষ এখানে অল্প টাকায় এই সেবা গ্রহণ করতে পারতেন। কিন্তু এনেসথেসিয়া চিকিৎসক ও অস্ত্রোপচার চিকিৎসকের অভাবে গত দুই বছর ধরে বন্ধ রয়েছে এ সকল কার্যক্রম। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ফয়সাল আহমেদ জানান, রূপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগর ৫ শতাধিক রোগীকে প্রতিদিন আমরা সেবা প্রদান করি।

কিন্ত হাসপাতালে গাইনি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকার পরও শুধুমাত্র এনেসথেসিয়া চিকিৎসকের অভাবে দুই বছর ধরে বন্ধ রয়েছে অস্ত্রোপচার সেবা। চিকিৎসা নিতে আসা উপজেলার রূপসী এলাকার ফিরোজা আক্তার জানান, হাসপাতালে নিতে এসেছিলেন টিউমারের অপারেশন করাতে। এখানে চিকিৎসক না থাকায় ফিরে যাচ্ছেন। তাকে বাধ্য হয়ে এখন ব্যক্তি মালিকানাধীন হাসপাতালে ছুটতে হবে। বাড়তি টাকার চিন্তা এখন তাকে ভাবাচ্ছে।

হাসপাতালের নিকটবর্তী মুসুরী এলাকার মাসুদ রানা জানান, প্রতিদিন ৫-৬ জন গর্ভবতী নারী রূপগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা থেকে এখানে ভর্তি হতে আসেন। কিন্ত হাসপাতালে গর্ভকালীন অস্ত্রোপচার সেবা বন্ধ শুনে তারা হতাশ হয়ে ফিরে যান। উপজেলার ত্রিশকাহানিয়া এলাকার আমিনুল ইসলাম জানান, তিনি তার ছোটবোনকে নিয়ে কয়েকদিন আগে হাসপাতালে গিয়েছিলেন গর্ভকালীন সেবা গ্রহণ করতে। কিন্ত চিকিৎসক আর জরুরি প্রয়োজনে অস্ত্রোপচার বন্ধ শুনে তিনি ফিরে আসেন।

গাইনি চিকিৎসক আক্তার জানান, প্রসূতির অস্ত্রোপচার করতে গাইনি চিকিৎসকের পাশাপাশি এনেসথেসিয়া চিকিৎসক প্রয়োজন। কিন্তু এনেসথেসিয়া চিকিৎসক না থাকায় আপাতত আমরা এ সেবা দিতে পারছি না।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) নূরজাহান আরা খাতুন বলেন, এনেসথেসিয়া ও সার্জারি চিকিৎসক না থাকায় বড় অস্ত্রোপচারগুলো চলছে না তবে ছোটখাটো অস্ত্রোপচারগুলো করা হচ্ছে। অনেকদিন ব্যবহার না হওয়ায় কিছু যন্ত্রপাতি সমস্যা হচ্ছে। আমরা যন্ত্রপাতিগুলো নিয়মিতভাবে পরিচর্যা করছি।

 

এসএইচআই

 

 

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুকে ২৪ লক্ষের পরিবার

সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ

কালচার

সিলেটে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ডে লাইফ সিল্ক ফাউন্ডেশন। সম্প্রতি নিজেদের স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে সংগঠনটির প্রতিনিধিরা হাজির হয় সিলেটের...

কপিরাইট Ⓒ ২০১২-২০২১ নিউজবিডি৭১.নেট । সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। বাড়ী- ৪৯ (১ম তলা), রোড- ১২, সেক্টর-১১, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০, বাংলাদেশ। প্রকাশক- মোহাম্মদ মানিক খান