স্পোর্টস ডেস্ক :

২০১৯ সালে জাতীয় লিগের ম্যাচে সতীর্থের গায়ে হাত তোলায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে শাহাদাত হোসেনকে। যদিও পাঁচ বছরের মধ্যে শেষ দুই বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা।

এরমধ্যে নিষেধাজ্ঞার ১৬ মাস শেষ হয়েছে শাহাদাতের। কিন্তু শাস্তি কমাতে হঠাত করেই বিসিবির শরণাপন্ন হয়েছেন এই পেসার। জানা যায় মায়ের অসুস্থতার খরচ চালানোর জন্য আবারও মাঠে ফেরার আকুতি তার।

মায়ের জরায়ু ক্যান্সার ধরা পড়ে ২০১৭ সালে। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে শাহাদাত জানান, ব্যয়বহুল চিকিৎসার খরচে বিক্রি করে দিয়েছেন শখের গাড়িও।

‘আমার এক ভাই জার্মানি থাকে, ও সেখান থেকে হেল্প করছে। আর আমার একটি গাড়ি ছিল, আম্মুর চিকিৎসার জন্য সেটি বিক্রি করে দিয়েছি। বিসিবি যদি আমাকে আবার খেলার সুযোগ দেয় তাহলে আমি মায়ের পাশে দাঁড়াতে পারব। আমার তো আর কোনো পেশা নেই। দুই বছর বসে থাকার কারণে কষ্ট বাড়ছে। বিসিবি, কোয়াবের কাছে ক্ষমা চেয়েছি। ইনশাল্লাহ, উনারা বিষয়টি বিবেচনা করে, একটি ব্যবস্থা করবেন।’

২০১৭ সালে ক্যানসারে আক্রান্ত হন শাহাদাতের মা। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানা যায় জরায়ু ক্যানসারে আক্রান্ত তিনি। তৎক্ষণাৎ চিকিৎসায় অনেকটা সেরে উঠলেও করোনা মহামারীর সময়ে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্যারালাইজড হয়ে যান। বর্তমানে তার ক্যানসার থার্ড স্টেজে আছে বলে জানিয়েছেন শাহাদাত।

তবে শাহাদাতের আকুল আবেদন, তার শাস্তি যেন মওকুফ করে দেয় বিসিবি। যাতে খেলার টাকায় মায়ের চিকিৎসা করাতে পারেন।

‘আমার এখন একটাই চাওয়া, আমি ক্রিকেটে ফিরতে চাই। আমি আর বেশি দিন হয়তো খেলতে পারব না। এখন যদি আমার বয়স ৩৬ হয়ে থাকে তাহলে আর ৪ বা ৫ বছর খেলতে পারব। আম্মুর অবস্থা খুবই খারাপ, এ জন্যও খেলতে চাই।