Connect with us

Hi, what are you looking for?

Newsbd71Newsbd71

সারাদেশ

পঞ্চগড়ে মরিচ নিয়ে সংকটে চাষিরা

পঞ্চগড়ে মরিচ নিয়ে সংকটে চাষিরা
পঞ্চগড়ে মরিচ নিয়ে সংকটে চাষিরা

কামরুজ্জামান টুটুল ,পঞ্চগড় : পঞ্চগড়ের লাল সোনা খ্যাত মরিচ নিয়ে এবার চরম সংকটে পড়েছেন চাষিরা। ব্যাপক ফলন হলেও একদিকে করোনা ভাইরাস ঠেকাতে লকডাউনের ফলে অর্ধেকে নেমেছে মরিচের দাম। অন্যদিকে মরিচের টেপা পচা(অ্যানথ্রাক্সনোজ) রোগে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন মরিচ চাষিরা।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় হাজার হাজার একর জমিতে লাগানো মরিচের আবাদ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার কারণে পরিপক্ক হওয়ার আগেই গাছেই পচে যাচ্ছে মরিচ। বেশির ভাগ মরিচের গায়ে ঝলসানো সাদা দাগ হয়ে ঝড়ে পড়ছে মাটিতে। সেই সঙ্গে হলুদ হয়ে মরে যাচ্ছে মরিচের গাছগুলো। এতে লাভের মুখ তো দুরের কথা উৎপাদন খরচ উঠানোই কঠিন হবে বলে বলছেন চাষিরা।

পঞ্চগড় কৃষি বিভাগ সূত্রে জানাগেছে এবার জেলায় ১০ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষ হয়েছে । সবচেয়ে বেশি চাষ হয়েছে আটোয়ারী উপজেলায়। স্থানীয় জাতের মরিচ ছাড়াও উচ্চফলনশীল (হাইব্রিড) জাতের বাঁশ গাইয়া, জিরা, মল্লিকা, বিন্দু, হটমাস্টার, সুরক্ষাসহ বিভিন্ন জাতের মরিচের ব্যাপক চাষ হয়েছে। উঁচু যেসব জমিতে অন্য ফসল ভাল হয়না সেসব জমিতেই বেশি মরিচ চাষ করেছেন চাষিরা। তবে এবার টেপা পচা রোগের কারণে মরিচের উৎপাদন অর্ধেকে নেমে আসবে বলে আশঙ্কা করছেন চাষিরা।

কৃষি কর্মকর্তারা রোগটিকে বলছেন এনথ্রাকনোজ। তারা বলেন মাঝে মাঝে বৃষ্টি, অসময়ে কুয়াশা এবং দিন ও রাতের তাপ মাত্রার তারতম্যের কারণে মরিচের এই অ্যানথ্রাক্সনোজ (স্থানীয়ভাষায় টেপাপচা) রোগহয়। এসব কারণে মরিচ গাছগুলো হলদে রঙ ধারণ করে ঝসলে যাচ্ছে। পানি রং ধারণ করে ঝড়ে যাচ্ছে মরিচ। কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ মেনে ওষুধ প্রয়োগ করেও কোন লাভ পাচ্ছেন না চাষিরা। একের পর এক ওষুধ প্রয়োগ করেও লাভ হচ্ছে না। এমনকি তারা ডেটল ও স্যাভলনও স্প্রে করছেন। চাষিরা অভিযোগ কৃষি কর্মকর্তারা তাদের সমস্যা দেখার জন্য মাঠে আসেন না। এদিকে বাজারে মরিচের দামও অর্ধেকে নেমে এসেছে। গতবছর শুকনো মরিচ ৮ থেকে ৯ হাজার টাকা মন দরে বিক্রী হলেও এবছর করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে তা অর্ধেকে নেমে গেছে। এমন করে চলতে থাকলে চাষিদের অনেক লোকসান গুণতে হবে বলে জানিয়েছেন তারা। চাষিরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

সদর উপজেলার নলেহা পাড়া গ্রামের মোঃ আমিনার রহমান জানান, ৩ বিঘা জমিতে মরিচ আবাদ করেছি । প্রত্যেক গাছে অর্ধেক মরিচ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এবার লোকশান হবে। আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর এলাকার উমের আলী জানান, এবার খরচও উঠবেনা। একদিকে দাম কম অন্যদিকে গাছেই মরিচ পচে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলন অত্যন্ত ভালো কিন্তু রোগে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

পঞ্চগড় কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু হানিফ চাষিদের সহযোগীতা না করার কথা অস্বীকার করে বলেন, এই রোগে অতঙ্কিত না হয়ে ছত্রাক নাশক ছিটানোর পরমার্শ দিচ্ছেন আমাদের মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা।

নিউজবিডি৭১/এম কে/ ৭ মে ২০২০

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুকে ২৪ লক্ষের পরিবার

সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ

কালচার

সিলেটে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ডে লাইফ সিল্ক ফাউন্ডেশন। সম্প্রতি নিজেদের স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে সংগঠনটির প্রতিনিধিরা হাজির হয় সিলেটের...

কপিরাইট Ⓒ ২০১২-২০২১ নিউজবিডি৭১.নেট । সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। বাড়ী- ৪৯ (১ম তলা), রোড- ১২, সেক্টর-১১, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০, বাংলাদেশ। প্রকাশক- মোহাম্মদ মানিক খান