Connect with us

Hi, what are you looking for?

Newsbd71Newsbd71

বাংলাদেশ

পারিবারিক চাপে সংসদ সদস্যরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নতুন আরো ৫৩ জনের করোনা পজেটিভ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নতুন আরো ৫৩ জনের করোনা পজেটিভ

ঢাকা : একজন সংসদ-সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আরেক সংসদ-সদস্যের পরিবারের সদস্য ও সংসদভবন এলাকায় দায়িত্ব পালনকারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন সংসদ-সদস্যরা। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানে ত্রাণ কার্যক্রমে অংশ নেওয়া সংসদ-সদস্যদের মধ্যেও। সংসদ-সদস্য আক্রান্ত হওয়ার খবরে ঘরমুখী হতে শুরু করেছেন অনেক এমপি। স্ত্রী-সন্তানসহ পরিবারের অন্যদের নিরাপদে রাখতে তারা বাড়তি সতর্কতা নিতে শুরু করেছেন। কারও কারও বাইরে যাওয়ার বিষয়ে পরিবারের সদস্যদের থেকেও বাধা পেতে হচ্ছে। বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্যের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

সপ্তাহখানেক আগেও সংসদ সদস্যদের নির্বাচনি এলাকায় ত্রাণ বিতরণ ও ধান কাটায় অংশ নেওয়া এবং ঘটা করে ধান কাটার মেশিন বিতরণে ধুম পড়ে। কিন্তু গত দুই-তিন হলো তাতে ভাটা পড়েছে। বেশিরভাগ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ-সদস্য এখন ঢাকার বাসায় আছেন। যারা এলাকায় আছেন তারাও গত দুদিনে বাইরে বের হননি।

কয়েকজন সংসদ সদস্য জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে ঘরের বাইরে যাওয়ার বিষয়ে পরিবারের সদস্যদের চাপ আগে থেকেই ছিল। এখন একজন সংসদ-সদস্য আক্রান্ত হওয়ায় এই চাপ আরো বেড়েছে। তবে চাপ হোক আর উৎকণ্ঠা হোক, জনপ্রতিনিধি হিসেবে এই দুর্যোগের সময় ঘরে থাকার সুযোগ নেই। মানুষের পাশে তাদের দাঁড়াতেই হবে।
প্রসঙ্গত, নওগাঁ-২ আসনের সংসদ-সদস্য শহীদুজ্জামান সরকার ও রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলীর স্ত্রীর করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন। অবশ্য ইতোমধ্যে কাজী কেরামত আলীর স্ত্রী সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন। অপরদিকে শহীদুজ্জামান সরকার জাতীয় সংসদ এলাকায় সংসদ সদস্য ভবনের বাসায় আইসোলেশনে আছেন। শহীদুজ্জামান সরকারের সংস্পর্শে আসায় নওগাঁ-৬ আসনের সংসদ-সদস্য ইসরাফিল আলম ও নওগাঁ-৩ আসনের ছলিম উদ্দিন তরফদার হোম কোয়ারেন্টিনে। এদিকে সংসদভবন এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকা ৩ পুলিশ ও একজন আনসার সদস্য ইতোমধ্যে করোনা পজিটিভ হয়েছে। এ কারণে আরো অর্ধশতাধিক পুলিশ সদস্যকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। এসব পুলিশ সদস্য সংসদভবনের ভেতরে অবস্থানকারী স্পিকার, ডেপুটি স্পিকারসহ অন্যান্য ভিআইপিদের বাসা এবং সড়কের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করতেন।

করোনা সতর্কতার অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগেই দলের সিনিয়র নেতা, অসুস্থ ও প্রবীণ সংসদ সদস্যদের বাসার বাইরে না বের হতে নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি জেলা প্রশাসনের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে এই নির্দেশনার কথা একাধিকবার তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দলের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সার্বক্ষণিক বাসায় অবস্থান করছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও নেত্রকোনা-৩ আসনের সংসদ-সদস্য অসীম কুমার উকিল বলেন, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা তো থাকেই। একজন সংসদ-সদস্য আক্রান্ত হওয়ার পর একটু আতঙ্ক সৃষ্টি হয়, এটা স্বাভাবিক। আমি করোনা পরিস্থিতির পরপরই এলাকা অবস্থান করে ত্রাণ কার্যক্রমসহ বিভিন্নভাবে মানুষের পাশে রয়েছি। আমরা যদি হাত গুটিয়ে আতঙ্কে ঘরে বসে থাকি তাহলে জনসাধারণ সেবা থেকে বঞ্চিত হবে। তবে আগাগোড়াই আমি সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার চেষ্টা করছি। সংসদ-সদস্য আক্রান্ত হওয়ার পর আরো সতর্ক রয়েছি।

বাইরে বের হওয়ার বিষয়ে পরিবারের সদস্যদের চাপ আছে কি-না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপনারা জানেন আমার স্ত্রীও রাজনীতি করেন। ফলে তার থেকে চাপ আসছে না। তবে সন্তানসহ অন্যদের থেকে কিছুটা চাপ তো আছেই। আর আমার মনে হয় এ ধরনের চাপ সবার ওপর কমবেশি থাকার কথা।

টাঙ্গাইল-৬ আসনের সংসদ-সদস্য আহসানুল ইসলাম (টিটু) বলেন, করোনা একটি বৈশ্বিক মহামারি এটাকে অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। এর বিরুদ্ধে অতি সাহস দেখানোর কোনো সুযোগ নেই। নির্বাচনি এলাকার যে কাজে না গেলে চলবেই না সেখানে যাচ্ছি। অন্য কাজগুলো ডিজিটালি চালাচ্ছি। আমি না গিয়ে যদি কাজটি সুন্দর হয় তাহলে যাওয়ার দরকারটাই বা কী। আমরা তো এখানে নির্বাহী নই। ত্রাণ বিতরণসহ অন্যান্য যেসব কাজ চলছে সেখানে সংসদ-সদস্যরা উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। সেই হিসেবে করণীয় সব কাজই করছি।

মৌলভীবাজার-৪ আসনের আব্দুস শহীদ বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের আতঙ্ক সবার মধ্যেই কম বেশি আছে। যেকোনও মুহূর্তে এটা আমাদের সংক্রমণ ঘটাতে পারে। এটা মেনে নিয়েই কাজ চালাচ্ছি। যেখানে নিজে না গেলে চলে সেখানে অন্যদের দিয়ে কাজ সম্পন্ন করছি। যেখানে যাওয়া জরুরি সেখানে যেতে হচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পরিবারের সদস্যদের কিছু উদ্বেগ থাকবেই। বাইরে যাওয়ার বিষয়ে তারা কিছুটা নিরুৎসাহিত তো করেই। তবে, সর্বশেষ কথা হলো সবাইকে একদিন না একদিন মারা যেতে হবে। কাজেই ভয় করে কী পার পাওয়া যাবে?
করোনা আক্রান্ত নওগাঁ-২ আসনের সংসদ সদস্য শহীদুজ্জামান সরকার জানান, তিনি বাসায় আইসোলেশনে আছেন। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চলছেন। তবে, এলাকায় ত্রাণ বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়েছেন। তাদের জন্য উদ্বেগ হচ্ছে। ব্যবস্থাপত্র নিয়মিত নিচ্ছেন এবং সে হিসেবে চলছেন। স্বপন বলেন, এর আগেও আমাদের একজন সংসদ সদস্যের স্ত্রী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং সুস্থ হয়ে গেছেন। একই বাসায় পরিবারের সদস্যদের থেকে আলাদা থাকাটা বেশ কঠিন বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংসদের হুইপ ও জয়পুরহাট-২ সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, সংসদ সদস্য হিসেবে আমাদের ভয় পাওয়ার কোনও সুযোগ নেই। করোনা একটি বৈশ্বিক সমস্যা। যে কেউ করোনায় সংক্রমিত হতে পারেন। অন্য সংসদ সদস্যদের মাঝে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা সৃষ্টি হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, একজন সহকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন, স্বভাবতই সেটি থাকবে। কিন্তু এর মানে এই নয় যে, ঘরে বসে যেতে হবে। সাবধানতা অবলম্বন করে কাজ করে যেতে হবে। আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন বলেন, আমরা আগে থেকেই সতর্ক আছি। দেশে করোনা শনাক্ত হওয়ার আগেই সংসদ এলাকার নিরাপত্তার জন্য আমরা সার্বিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি।

পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, যারা আক্রান্ত হয়েছেন, আইসোলেশনের পাশাপাশি তাদের সংস্পর্শে যেসব পুলিশ সদস্য ছিল, তাদের কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

নিউজবিডি৭১/এম কে/ ৪ মে ২০২০

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুকে ২৪ লক্ষের পরিবার

সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ

কালচার

সিলেটে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ডে লাইফ সিল্ক ফাউন্ডেশন। সম্প্রতি নিজেদের স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে সংগঠনটির প্রতিনিধিরা হাজির হয় সিলেটের...

কপিরাইট Ⓒ ২০১২-২০২১ নিউজবিডি৭১.নেট । সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। বাড়ী- ৪৯ (১ম তলা), রোড- ১২, সেক্টর-১১, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০, বাংলাদেশ। প্রকাশক- মোহাম্মদ মানিক খান