কৃষকেরা বোরো ধান মাড়াই করছেন। সম্প্রতি ময়মনসিংহ গফরগাঁও উপজেলার নিগুয়ারী ইউনিয়নের ৮ ওয়ার্ড কৃষকেরা ।

গফরগাঁও উপজেলায় প্রায় প্রতিটি গ্রামের কৃষকেরা চলতি মৌসুমে বোরো ধানের আবাদ করেছেন। ফলনও ভালো হয়েছে বলছেন কৃষকেরা। ১০ জন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাঁরা নিজেরা পরিশ্রম করে ধানের আবাদ করেন। এ কারণে তাঁদের খরচ কম হয়। এতে তাঁদের লাভ বেশি হয়।

উপজেলার নূর মোহাম্মদ নামক এক কৃষক তিনি জানান ১৪ শতাংশ জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছেন।

খরচ হয়েছে ৪ হাজার টাকা । ১২ মণ ধান পেয়েছেন। প্রতি মণ ধান ৮৫০ টাকা দরে বিক্রি করলে তিনি এখন ১০২০০টাকা পাবেন। তিনি বলেন, বিষমুক্ত ধানের আবাদ করে তিনি খুশি।

সাইফুল ইসলাম নামে এক কৃষক বলেন, তিনি ৭০ শতাংশ জমিতে বোরো দান আবাদ করেছে ,খরচ হয়েছে ৮০০০হাজার টাকা ৬০ মণ ধান পেয়েছেন। প্রতি মণ ধান ৮০০ টাকা দরে বিক্রি করলে তিনি এখন ৪৮ হাজার টাকা পাবেন। তিনি বলেন, বিষমুক্ত ধানের আবাদ করে তিনি খুশি তাঁর ৫ সদস্যের পরিবারের সারা বছরের ভাতের জন্য আর ভাবতে হবে না। অন্যান্য কাজের ফাঁকে ফাঁকে নিজেই পরিশ্রম করে ধান চাষ করেন। এ কারণেই ধানে লাভবান হয়েছেন। তাঁর মতে, অন্যান্য বছরের চেয়ে এ বছর কোনো কোনো জমিতে ফলন খুব ভালো হয়েছে।

উপজেলার নিগুয়ারী ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম আকন্দ বলেন আমার এলাকায় কৃষি জমির সংখ্যা বেশি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে কৃষককে জমিতে ধান চাষ করতে উদ্বুদ্ধ করেছি এবং বিভিন্ন সমস্যায় কৃষকের পাশে এগিয়ে এসেছি । আমার এলাকায় বোরো ধানের ফলন ভালো হয়েছে।। সকল কৃষকের মুখে বোরো ধানের হাসি।
তবে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তারা কৃষকদের দিকে একটু নজর দেয় তাহলে সামনে কৃষক বোরো ধান চাষে উদ্বুদ্ধ হবে।

গফরগাঁও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেন, বোরো ধান আবাদে কৃষক সচেতন হলে কম খরচে বিষমুক্ত অধিক ফলন পাওয়া সম্ভব। এ বছর বোরো ধানের ফলন ভালো হয়েছে। কৃষকেরা লাভবান হয়েছেন।

এমকে