ঢাকায় আনা মেট্রোরেলের প্রথম সেটের ছয়টি কোচের (বগি) মধ্যে দুটি কোচ লরিতে করে বৃহস্পতিবার সকালে দিয়াবাড়ি ডিপোতে নিয়ে আসা হয়েছে। দিনভর একই লরিতে করে আরো দুটি, মোট চারটি কোচ ডিপোতে নিয়ে যাওয়া হবে। জেটিতে অবস্থানরত বাকি দুটি কোচ নামিয়ে আগামীকাল শুক্রবার সকালে ডিপোতে নেওয়ার কথা রয়েছে।

মেট্রোরেলের প্রথম সেটের ছয়টি কোচ এর আগে বুধবার নদী পথে দিয়াবাড়ি ডিপো সংলগ্ন ঘাটে এসে পৌঁছায়।

মেট্রোরেল প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম, এ, এন, ছিদ্দিক জানান, গত ৪ মার্চ জাপানের কোবে বন্দর থেকে বগিগুলো নিয়ে জাহাজ সাগরপথে বাংলাদেশে উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। ৩১ মার্চ মোংলা বন্দরে খালাসের পর নদীপথে চাঁদপুর হয়ে ঢাকায় আনা হয়েছে বগিগুলো। কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী ২৩ এপ্রিল মেট্রোরেলের প্রথম সেট ঢাকার আসার কথা ছিল। নির্ধারিত সময়ের দু’দিন আগে আনা গেছে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরো বলেন, ডিপোতে আনার পর বগিগুলোর ১৯ ধরনের পরীক্ষা করা হবে। এরপর বলা যাবে কবে নাগাদ পরীক্ষামূলক যাত্রা (ট্রায়াল রান) করা হবে।

রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল থেকে ২০ দশমিক ১ কিলোমিটার দীর্ঘ দেশের প্রথম মেট্রোরেল (এমআরটি-৬) পথে এইসব বগি। পর্যায়ক্রমে আরো চার সেট ট্রেন আসবে। সব মিলিয়ে পাঁচ সেট চলবে এই পথে। বিদ্যুৎচালিত প্রতি সেটে বগি থাকবে ছয়টি করে। বগি আনার কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৪০ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে প্রায় ৬০ ভাগ। দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও অংশে অগ্রগতি ৮৩ শতাংশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ১ দশমিক ১৬ কিলোমিটার বাড়বে এমআরটি-৬ এর দৈর্ঘ্য।

ঢাকায় পাঁচটি মেট্রোরেল পথের জন্য সর্বমোট ২৪ সেট ট্রেন কেনা হবে।

বগি গুলো নির্মাণ করছে জাপানের কাওয়াসাকি-মিতসুবিসি। প্রকল্প পরিচালনা অনুযায়ী এমআরটি-৬ এর দ্বিতীয় সেট জুনে, তৃতীয় ও চতুর্থ সেট আগস্টে এবং পঞ্চম সেট আসবে সেপ্টেম্বরে।

প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন এমআরটি-৬ এ স্টেশন থাকবে ১৭টি।

এমকে