Connect with us

Hi, what are you looking for?

Newsbd71Newsbd71

সারাদেশ

রূপগঞ্জে মাদক কারবারিদের সংঘর্ষে চনপাড়া রণক্ষেত্র, পুলিশসহ আহত ৩৫

মোঃ সাজেদুর রহমান, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মাদক ব্যবসায়ীদের দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে ৭ পুলিশ সদস্যসহ উভয়পক্ষের অন্তত ৩৫ জন আহত ‘হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেন।

এক গ্রুপ আরেক গ্রুপের বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুরের ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুরো এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। যে কোন সময় আবারো রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। এ ঘটনায় দুই জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত রোববার (৪ জুলাই) রাতে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের চনপাড়া পুর্ণবাসন কেন্দ্রে ঘটে এ সংঘর্ষের ঘটনা। এদিকে, পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক পরেশ বাগচি বাদী হয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের উভয় গ্রুপের মাদক ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন, শাহিন ওরফে সিটি শাহিনসহ ২১ জনের নাম উল্লেখ করে রূপগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃতরা হলো, চনপাড়া ৮নং ব্লক এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে মামুন ও ৪ নং ব্লক এলাকার মিন্টুর ছেলে নাঈম।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, চনপাড়া পূর্ণবাসন কেন্দ্রের জয়নাল আবেদীন ও শাহিন ওরফে সিটি শাহিনের নেতৃত্বে চনপাড়া পূর্ণবাসন কেন্দ্র এলাকায় দীর্ঘ দিন ধরে পাইকারী ও খুচরা ইয়াবা ট্যাবলেট, মদ, ফেনসিডিল, বিয়ারসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক ব্যবসা চলে আসছিলো। আর এ মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জয়নাল আবেদীন গ্রুপের সঙ্গে শাহিন ওরফে সিটি শাহিন গ্রুপের বিরোধ চলে আসছে। শাহিন ওরফে সিটি শাহিন গ্রুপের রবিন নামের মাদক ব্যবসায়ী চনপাড়া পূর্ণবাসন কেন্দ্রের ৬নং ব্লক এলাকায় মাদকের স্পট দিয়ে বসে। ৬নং ব্লক এলাকাটি জয়নাল আবেদিনের নিয়ন্ত্রনে। তাই জয়নাল আবেদিন তার এলাকায় শাহিন ওরফে সিটি শাহিন গ্রুপকে মাদক ব্যবসা করতে দিবেন না বলে বাঁধা প্রদান করেন। রোববার সন্ধ্যার পর এ নিয়ে জয়নাল আবেদীনসহ তার লোকজনের সঙ্গে শাহিন ওরফে সিটি শাহিনসহ তার লোকজনের বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে রাত ৯টার দিকে উভয় গ্রুপের লোকজন রামদা, চাপাতি, তলোয়ার, বল্লম, ছামুরাই, চাইনিজ কুড়াল, ছুড়িসহ বিভিন্ন অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় পুরো চনপাড়া পুর্ণবাসন কেন্দ্রের সাধারন মানুষ ভয়ে ও আতঙ্কে ছুটাছুটি করতে শুরু করে। খবর পেয়ে রূপগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করেন। এসময় উভয় গ্রুপের লোকজন পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। এসময় সন্ত্রাসীদের হামলায় রূপগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) হুমায়ুন কবির মোল্লা, উপ-পরিদর্শক পরেশ বাগচি, সহকারী উপ-পরিদর্শক বাইজিত, কনস্টেবল সিরাজুল ইসলাম, নুরুল আমিন, আবুব ক্করসহ ৭ পুলিশ সদস্য আহত হন। এছাড়া মাদক ব্যবসায়ীদের দুই গ্রুপের মোক্তার হোসেন, জিহাদ, রায়হান, সজিব, রিপন, রাব্বি, সাকিব, বাবুসহ অন্তত ২৩ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্ল্ক্সেসহ ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ৭২ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেন। এ ঘটনায় পুলিশ মামুন ও নাঈম নামের ওই দুই জনকে গ্রেফতার করেছে।

নাম না প্রকাশ শর্তে এলাকাবাসী অনেকেই অভিযোগ করে জানান, জয়নাল আবেদীনগ্রুপ ও শাহিন ওরফে সিটি শাহিন গ্রুপের মাদক ব্যবসাসহ নানা অপকর্মে এলাবাসী অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। এরা বিভিন্ন প্রভাবশালীদের সেল্টারে থেকে এসব অপরাধমুলক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। এদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস টুকুও পায়না। প্রতিবাদ করলে হত্যার শিকারসহ নানা ধরনের মামলা-হামলার শিকার হতে হয়। এদের হাত থেকে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরাও রেহায় পায়না। আইন শৃংখলা বাহিনীর উপর বেশ কয়েকবার হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে এসব অপরাধীরা।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ বলেন, ঘটনাস্থল অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পুলিশের উপর হামলাকারীসহ অন্যায়কারী কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা। উভয় গ্রুপের অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এম কে

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুকে ২৪ লক্ষের পরিবার

সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ

কালচার

সিলেটে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ডে লাইফ সিল্ক ফাউন্ডেশন। সম্প্রতি নিজেদের স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে সংগঠনটির প্রতিনিধিরা হাজির হয় সিলেটের...

কপিরাইট Ⓒ ২০১২-২০২১ নিউজবিডি৭১.নেট । সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। বাড়ী- ৪৯ (১ম তলা), রোড- ১২, সেক্টর-১১, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০, বাংলাদেশ। প্রকাশক- মোহাম্মদ মানিক খান