নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

 

তালা ভেঙে হলে ওঠা আন্দোলনরত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সকাল ১০টার মধ্যে হলত্যাগের নির্দেশ দেয়া হলেও শিক্ষার্থীরা তা আমলে নিচ্ছেন না। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নির্দেশ অমান্য করে হলেই অবস্থান করছেন তারা। হল ছাড়ার সময়সীমা এক ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও এখনও হলে অবস্থান করছেন শিক্ষার্থীরা।

সরেজমিনে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা গেছে, ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের খুব একটা দেখা মিলছে না। হলে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীদের হলে থাকতেই দেখা গেছে। বেশ কয়েকটি আবাসিক হল ঘুরে ছাত্রদের কক্ষ ভেতর থেকে আটকানো অবস্থায় দেখা গেছে।

সকাল ১১টায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে উপাচার্য ভবনের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

রবিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনা মহামারি থেকে সুরক্ষার জন্য সরকারি নির্দেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল বন্ধ রাখা হয়েছে। তাই জোর করে যারা হলে উঠে পড়েছে তাদের হল ত্যাগ করতে হবে। নির্দেশ না মানলে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারও দেয়া হয়েছে।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন গেরুয়া বাজারে ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দাদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ৩৫ জন শিক্ষার্থী আহত হন। এ সময় স্থানীয়রা শিক্ষার্থীদের পাঁচটি মোটরবাইক ভাঙচুর করেন।

রবিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চত্বরে সংবাদ সম্মেলনে হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও হল খুলে দেয়ার দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় রবিবার রাতে মামলা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাত ২৫০ জনকে আসামি করে মামলাটি করা হয়।